পার্কস্ট্রিটে বহুতল থেকে ঝাঁপ পাঁচ তরুণীর । এম ভারত নিউজ

user
0 0
Read Time:5 Minute, 3 Second

বেতন নিয়ে অনেক কর্মচারীই সমস্যায় ভোগেন, হতাশ হয়ে পড়েন অনেকেই| বেতন, বকেয়া নিয়ে হতাশায় আবারও আত্মহত্যার চেষ্টা পাঁচ তরুণীর, সাক্ষী থাকল পার্কস্ট্রিট|হাতে হাত ধরে পাঁচতলার বারান্দায় দাঁড়িয়ে পাঁচ তরুণী। চিৎকার করে তাঁরা বলে চলেছেন, বকেয়া বেতন পাচ্ছেন না। তাই তাঁরা আত্মহত্যা করবেন। পাড়ার লোকেরা বলছেন, বারান্দার ওই বিপজ্জক জায়গায় না দাঁড়িয়ে নেমে আসতে। তরুণীরা বলছেন, তাঁরা কারওর কথা শুনবেন না। বকেয়া টাকা না পেলে উপর থেকে রাস্তায় ঝাঁপ দেবেন। শেষ পর্যন্ত এলাকার বাসিন্দারা খবর দেন পুলিশে এবং পুলিশ ছুটে এসে নিরস্ত করলেন তাঁদের। লকডাউনের জন্য বহুদিন ধরে বন্ধ সার্কাস। রাজ্যের নামী সার্কাস উঠে যাওয়ার জোগাড়। মালিক বেতন দিতে পারছিলেন না। তাই ওই মালিকের বাড়িরই পাঁচতলার বারান্দায় দাঁড়িয়ে আত্মহত্যার হুমকি দেন সার্কাসের পাঁচ তরুণীর।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পার্কস্ট্রিট এলাকায় রবিবার হুলস্থূলু পরিস্থিতি দেখা দিল। শেষ পর্যন্ত সমস্যা মিটল পার্ক স্ট্রিট থানার পুলিশের হস্তক্ষেপে। পুলিশ ও এলাকা সূত্রে জানা গিয়েছে, পার্ক স্ট্রিট থানা এলাকার স্যান্ডাল স্ট্রিটের একটি পাঁচতলা বাড়িতে থাকেন ওই নামী সার্কাসের মালিক। এর আগে সারা দেশজুড়ে ঘুরত এই সার্কাস। প্রত্যেক বছর শীতকালে কলকাতা-সহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় আসত এই সার্কাস। বাঘ, সিংহ ও বিভিন্ন জন্তুজানোয়ারের খেলা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকে ওই সার্কাসেও ভিড় কম হতে থাকে। তবুও কোনওমতে চলছিল সার্কাসটি। পুলিশের সূত্র জানিয়েছে, সার্কাসের মালিক কর্মচারীদের বেতন দিচ্ছিলেন। কিন্তু গত বছর লকডাউনের পর থেকে সার্কাসের অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। কোভিড পরিস্থিতিতে গত শীতেও বসেনি সার্কাস। সার্কাসের কলাকুশলীরা প্রায় বসেই কাটিয়েছিলেন। তার ফলে মালিক ও কর্মচারীদের আর্থিক অবস্থা তলানিতে গিয়ে ঠেকে।

পুলিশের এক আধিকারিক জানান, এর মধ্যেই কর্মচারীরা শুনতে পান যে, মালিক সার্কাসটি বন্ধ করে দিতে চলেছেন।ওই পাঁচ তরুণী ছোটবেলা থেকেই সার্কাসে কাজ করতেন। সার্কাসেই কাজ শিখেছেন। তাঁদের কারও বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুর বা বারুইপুরে। আবার কেউ খড়গপুরের বাসিন্দা।সেই পাঁচ তরুণী নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ করে আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে এসে হাজির হন। তারপর সেখান থেকে স্যান্ডাল স্ট্রিটে পৌঁছে যান তারা, সার্কাসের মালিকের বাড়িতে। তাঁরা মালিকের সঙ্গে দেখা করে টাকাও চান। পুলিশকে পাঁচ তরুণীরা পরে জানান, তাঁদের বেতন বকেয়া ছিল। তাঁরা টাকা চাইতে গেলে তাঁদের পুরো টাকা দেওয়া হয়নি। তাঁদের চলে যেতে বলা হয়। এর পরই তাঁরা বাড়ির একটি বারান্দায় চলে আসেন। বারান্দায় হাতে হাত ধরে দাঁড়ান পাঁচজন। চিৎকার করে বলতে থাকেন, তাঁরা বেতন পাচ্ছেন না। তাঁরা সবাই খুব অভাবের মধ্যে রয়েছেন। তাই বকেয়া টাকা না পেলে তাঁদের বেঁচে থেকে লাভ নেই। ওই পাঁচ তরুণীকে ওভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে এলাকার বাসিন্দারা আঁতকে ওঠেন।প্রতিবেশীরা তরুণীদের নেমে আসতে বলেন কিন্তু তাতেও কোনও লাভ হয়নি|তাই তারা পার্ক স্ট্রিট থানায় পুরো ঘটনাটি জানান। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থলে হাজির হয় পুলিশ।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

করোনা আবহে কলকাতায় কোন ভোট প্রচার করবেন না মমতা । এম ভারত নিউজ

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন ২০২১ -এর ভোটগ্রহণের প্রেক্ষাপটেই চলছে করোনা সংক্রমনের মারাত্মক ভয়াবহতা। ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গকে গ্রাস করে ফেলেছে করোনা। দৈনিক সংক্রমনের মাত্র সাত হাজারের কোঠা ছাড়ানোর পরেই তৃণমূল কংগ্রেসের সুপ্রিমোর নয়া সিদ্ধান্ত সামনে এল । আগামী ২৬ এপ্রিল শুধু মাত্র একটি প্রতীকী বৈঠক ছাড়া মহানগরীর বুকে কোন রাজনৈতিক প্রচারে জনসভা করবেন […]

Subscribe US Now

error: Content Protected