“নন্দীগ্রামে হোঁচট খেয়েছিলাম একটু”, বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি মমতার । এম ভারত নিউজ

user
0 0
Read Time:3 Minute, 16 Second

চলতি মাসেরই ১০তারিখ নন্দীগ্রামে প্রচার সেরে ফেরার পথে মন্দিরে প্রণাম করার সময় গুরুতর আহত হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আঘাত লাগে পায়ে, হাতে এবং কপালে। ঘটনাস্থল থেকেই প্রথমে বিরোধীদলের বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতিই তাঁকে ঠেলে দিয়েছিল বলে অভিযোগ তোলেন তিনি। এরপর গ্রিন করিডর বানিয়ে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় নন্দীগ্রাম থেকে কলকাতা ফিরিয়ে আনা হয় তাঁকে। এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসা চলে তাঁর। দুর্ঘটনার পরের দিনই হাসপাতালের বিছানা শুয়েই একটি ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেন মমতা। সেখানে অবশ্য চক্রান্তের ব্যাপারে কিছুই বলতে শোনা যায়নি তাঁকে। নির্বাচন কমিশন এবং জেলা প্রশাসনের করা কোনো তদন্তেই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ষড়যন্ত্র হয়েছে এমন কিছু বলা হয়নি। উপরন্তু প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান অনুযায়ী সেদিনের ঘটনাটিকে নিছকই দুর্ঘটনা বলা হয়েছে রিপোর্ট। সেদিনের সেই ঘটনার পর আজ আবার মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যকে ঘিরে তুমুল সমালোচনার ঝড় রাজ্যজুড়ে। শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডেবরার দলীয় প্রার্থী হুমায়ুন কবীরের সমর্থনে একটি সভা থেকে নিজের মুখে স্বীকার করেন যে, সেদিন উনি হোঁচট খেয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “নন্দীগ্রাম থেকে প্রচার অভিযান শুরু করেছিলাম। আসে সেখানে একটু হোঁচট খেয়েছিলাম। রাজনৈতিক হোঁচট নয়, শারীরিক হোঁচট। সে যাই হয়ে থাকুক, আমি এখন এটা নিয়ে আর কথা বলব না।”

মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে ঘিরেই উঠছে প্রশ্ন। তবে কি ‘সিমপ্যাথি ভোটে’ জেতার জন্যই পুরো ঘটনাটি সাজানো হয়েছিল? এমন প্রশ্নও উঠছে বিভিন্ন মহলে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বক্তব্যকেই এবার তুরুপের তাস বানিয়েছে বিজেপি। বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্য নিয়ে কটাক্ষ করে বলেন, “প্রথমে উনি বলেছিলেন চার-পাঁচজন মিলে ধাক্কা দিয়েছে। তারপর বললেন গাড়ির বনেটে দাঁড়িয়ে নমস্কার করার সময় বিপত্তি ঘটেছে। আর এখন বলছেন তিনি হোঁচট খেয়েছেন। আসলে এখন তৃণমূল বুঝে গিয়েছে যে হুইল চেয়ারটা ওভার অ্যাক্টিং হয়ে গেছে। তাই বারবার বয়ান বদলাচ্ছেন উনি।”

কোনটা সত্যিই, কোনটাই বা মিথ্যে, সবটাই অবশ্য ধোঁয়াশায় ঢাকা এখনো।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

স্যালাইন চুরির অভিযোগ খোদ নার্সেরই মেয়ের বিরুদ্ধে । এম ভারত নিউজ

আজ সন্ধ্যায় বীরভূম জেলার দুবরাজপুর গ্রামীন হাসপাতালে সেলাইন চুরির ঘটনা সামনে আসে। জানা যায়, এই হাসপাতালের নার্স হিসেবে কাজ করেন সীমা মন্ডল নামে ভদ্রমহিলা। আজ সন্ধ্যায় ৬ টা নাগাদ সীমা মন্ডলের মেয়ে হাসপাতাল থেকে কয়েকটা সেলাইনের বোতল থলেতে করে নিয়ে যাচ্ছিল এমন সময় এমবুল্যান্সের চালকরা তাকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। পরবর্তীতে […]

Subscribe US Now

error: Content Protected