করোনায় মৃত বাবা, জ্বলন্ত চিতায় ঝাঁপ মেয়ের । এম ভারত নিউজ

user
0 0
Read Time:1 Minute, 59 Second

মাত্র কিছুদিন আগেই মৃত্যু হয়েছে মায়ের। এবার করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বাবাও। এই ভয়াবহ মৃত্যুশোক সামলাতে না পেরে বাবার চিতাতেই ঝাঁপ দিল মেয়ে। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের বারমার জেলায়৷ মঙ্গলবার ৭৩ বছর বয়সী দামোদরদাস শারদা মারা যান করোনায়৷ হাসপাতালেই তাঁর মৃত্যু হয়৷ দাহ করতে তাঁর দেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হলে বাবার শেষকৃত্যে হাজির হন তিন মেয়ে৷ তাঁদের মধ্যে সবচেয়ে ছোট চন্দ্রা শারদাই ঝাঁপ দেন বাবার চিতায়৷

পরিবার সূত্রে খবর, বাবাকে ভীষণই ভালোবাসত মেয়ে। কিছুদিন আগে মায়ের মৃত্যু, আর তারপর এই পিতৃশোক, সহ্য করতে না পেরে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন বছর ৩৪ এর চন্দ্রা। হঠাৎ তিনি ঝাঁপ দেন বাবার জ্বলন্ত চিতাতেই। শ্মশানে উপস্থিত লোকজন কোনো প্রকারে চিতা থেকে তাঁকে উদ্ধার করেন। উদ্ধার করার পর যোধপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানেই চিকিৎসাধীন তিনি। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন চন্দ্রার দেহের ৭০% ই পুড়ে গেছে। তাঁর অবস্থা সংকটজনক। কোতয়ালি থানার এক পুলিশ অফিসার জানান “প্রথমে মা মারা যান৷ তারপর বাবা৷ প্রিয়জনদের পরপর মৃত্যু মেনে নিতে পারেনি ছোটো মেয়েটি৷ তাই বাবার চিতাতেই ঝাঁপ দেয় সে”।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

করোনা পরিস্থিতিতে কতখানি ভয়াবহ শহরের অবস্থা, জেনে নিন । এম ভারত নিউজ

দেশজুড়ে করোনার কঠিন পরিস্থিতিতে নাজেহাল হচ্ছেন মহানগরীবাসী । গত কয়েক দিনে টিকাকরন নিয়ে বেশ নাজেহাল হতে হয় মহানগরবাসীকে। গত কয়েকদিন ধরে সমস্যায় পড়েছেন বিধাননগর বাসীও। বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে আজও ভ্যাকসিন-হয়রানিতে পড়তে হয় সাধারণ মানুষকে। হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে টিকাকরণ শুরু হয়েছে বেশ অনেকদিন। তবে সাধারণ মানুষকে কোভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া […]

Subscribe US Now

error: Content Protected